1. admin@dainiksangbaderkagoj.com : admin :
  2. mahadihasanchamak@gmail.com : Azizul islam : Azizul islam
মুক্তিযুদ্ধে বিজয় ও গণমাধ্যমের ভূমিকা : - দৈনিক সংবাদের কাগজ
২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ| ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ| গ্রীষ্মকাল| মঙ্গলবার| রাত ৯:৩১|

মুক্তিযুদ্ধে বিজয় ও গণমাধ্যমের ভূমিকা :

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০২৩,
  • 13 Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক :

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। যা বাঙালি জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ ও মহত্তম অর্জন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর ঝাঁপিয়ে পড়া, ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আনুষ্ঠানিক স্বাধীনতার ঘোষণা ও বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে বাঙালির সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয় বঙ্গবন্ধুর আকাঙ্খিত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা তথা সুখী-সমৃদ্ধ, আধুনিক উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করার অঙ্গিকার নিয়ে এ বছর ৫৩তম বিজয় দিবস পালন করা হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা তথা বাঙালি জাতির চূড়ান্ত বিজয় অর্জনে গণমাধ্যমের অসামান্য অবদান রয়েছে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাঙালি জাতির বিজয় অর্জনের পেছনে গণমাধ্যমের ভূমিকা ছিল অগ্রগণ্য। মুক্তিযুদ্ধকালে মুজিবনগর সরকার বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল, প্রবাসী বাঙালি এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন ভাষায় প্রকাশিত নিয়মিত-অনিয়মিত বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ও সংবাদ মাধ্যমে পাকিস্তান বাহিনীর গণহত্যার বর্বরতা, সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ-দুর্দশা তুলে ধরা হয়, ফলে বিদেশি বন্ধু দেশগুলো সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়। বিভিন্ন দেশ ও গোষ্ঠি সহমর্মিতা নিয়ে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ায়। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ধরণের পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ, সম্পাদকীয়, কবিতা, গান, প্রবন্ধ, কার্টুন, প্রভৃতির মাধ্যমে পাকিস্তানিদের নৃশংসতার নিন্দা-ক্ষোভ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতি সমর্থন জানানো হয়। যার ফলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জনগণের প্রতি জাতীয়-আন্তর্জাতিক পর্যায়ে জনমত গড়ে উঠে। এতে বীর মুক্তিযোদ্ধারা অনুপ্রাণিত হন। জনগণের প্রত্যাশা বাড়ে, ভয়ভীতি উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঙালি যুবক-যুবতীরা মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমের বলিষ্ঠ ভূমিকা সে সময় বিশ্ব বিবেককে নাড়া দেয়। নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও দেশি-বিদেশি গণমাধ্যম আমাদের মহান মুুক্তিযুদ্ধের তথা বাঙালি জনগণের পক্ষে ছিল। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ’৬৯ এর গণঅভ্যূত্থান, ’৭০ এর নির্বাচন এবং ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশীয় সংবাদপত্র ও গণমাধ্যমগুলো স্বাধিকার আন্দোলনে সহায়ক ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

১৯৭১ সালের মার্চ মাসে তদানীন্তন পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সাথে বঙ্গবন্ধুর বৈঠক চলাকালে ২২ মার্চ দেশের পত্রিকাগুলো “বাংলা স্বাধিকার” শিরোনামে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে। এতে বঙ্গবন্ধুর শুভেচ্ছা বাণী প্রকাশ করে এবং এতে বলা হয় “বাংলাদেশের ৭ কোটি মানুষের সার্বিক মুক্তির জন্য আমাদের এ সংগ্রাম, অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম চলবে।” এতে পাকিস্তান সরকার সংবাদপত্রের ওপর রুষ্ট হয় এবং সংবাদ প্রকাশের ব্যাপারে অনৈতিক চাপ সৃষ্টি করে। ২৫ মার্চ কালোরাতে পাকিস্তানী বাহিনী ‘দি পিপলস’ অফিসে আক্রমণ করে এবং এতে ৬ জন সাংবাদিক নিহত হন। ২৫ মার্চের “সার্চলাইট” নামের গণহত্যার খবর যাতে দেশ-বিদেশে প্রচার হতে না পারে, সেজন্য পাকিস্তানী বাহিনী হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে অবস্থানরত বিদেশি সাংবাদিকদের আটক করে। অধিকন্ত ২৬ মার্চে দৈনিক ইত্তেফাক এবং ২৮ মার্চে দৈনিক সংবাদ পত্রিকা অফিস পুড়িয়ে দেয়। এসব সত্ত্বেও দেশি-বিদেশি সাংবাদিকেরা ও সংবাদমাধ্যমগুলো বিশ্বজনমত গঠন, পাকিস্তানি বর্বরতা সংবাদ পরিবেশন, নিন্দা জানানো ও মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল বাড়াতে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছে। মুক্তিযুদ্ধকালে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে ৬৪টি পত্রিকা প্রকাশের তথ্য পাওয়া যায়। এগুলোর মধ্যে কয়েকটি দৈনিক এবং বেশীর ভাগ সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক, সাময়িক, বুলেটিন, ম্যাগাজিন, নিউজ লেটার প্রভৃতি রয়েছে। এসব পত্রিকার মধ্যে মুজিবনগর সরকারের পক্ষ থেকে প্রকাশিত ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুখপত্র “জয় বাংলা” পত্রিকাটির সম্পাদকীয়তে মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বর গণহত্যা, নারী ধর্ষণ, ধংসযজ্ঞের তীব্র নিন্দা ও ঘৃণা প্রকাশ করা হয়। বঙ্গবাণী পত্রিকা পাকিস্তানী বাহিনীর নির্মম হত্যাকান্ড ও ধ্বংসযজ্ঞ তুলে ধরে এর বিচার দাবি করে। স্বদেশ পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং পাকিস্তানের বৈষম্যনীতি ইত্যাদি বিষয় উল্লেখ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যৌক্তিকতা তুলে ধরে এবং মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে অনুপ্রাণিত করে। সে সময় আমাদের দেশীয় বিভিন্ন পত্রিকায় বিভিন্ন সংখ্যায় বঙ্গবন্ধু প্রহসনের বিচারের সমালোচনা, নারীদের প্রতি পাকিস্তানী বাহিনী নির্যাতন-নিপীড়ন, ধর্ষণ ইত্যাদি বিষয় উল্লেখ করা হয়। এ পত্রিকায় বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপক্ষে অবস্থানের জন্য বিশ্বের ২৪টি দেশের প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্ধিরা গান্ধীর আবেদন প্রকাশ করা হয়। রণাঙ্গন পত্রিকার সম্পাদকীয়তে ইয়াহিয়া খানের বিশ্বাসঘাতকতা, বঙ্গবন্ধু বিচারের সমালোচনা, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর বক্তব্যসহ মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণাদায়ক বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা হয়। স্বাধীন বাংলার বিভিন্ন সংখ্যায় বাংলার নারী সমাজকে বাঁচানোর জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
নিজের সার্বভৌমত্ব ঘোষণা করেছে এবং বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশের প্রতি স্বীকৃতি ও সহায়তার আবেদন জানিয়েছে।’ সে সময় ঘানার একটি সাপ্তাহিক- এর এক সম্পাদকীয়তে উল্লেখ করে, ‘ইয়াহিয়া খান’ সংখ্যালঘুর শাসন কায়েম করেছেন। তাই বিশ্বের শান্তিপ্রিয় দেশগুলোর উচিত, সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগ করে জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর ত্বরান্বিত করা।’ বিবিসির সাংবাদিক মার্ক টালির নিরপেক্ষ সংবাদমাধ্যমে বিশ্ববাসী প্রতিদিন মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত তথ্য তথা পাকিস্তানি বর্বরতা-নৃশংসতার খবর জানতে পেরেছে।এতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সমর্থন বেড়েছে।

লেখক পরিচিতি: লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল সভাপতি, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Calendar

Calendar is loading...
Powered by Booking Calendar
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া, নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি, কপিরাইট 2022 ইং দৈনিক আলোকিত বশিশাল এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
ভুল তথ্যর জন্য সেই তথ্য দাতাই দায়ী থাকবে, কর্তৃপক্ষ কোন ভাবে দায়ী থাকবে না।
Theme Customize BY BD IT HOST